রবিবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৯

সান্তনার-নিশামে সিরিজে সমতা ফেরালো নিউজিল্যান্ড

সান্তনার-নিশামে সিরিজে সমতা ফেরালো নিউজিল্যান্ড

ঘরের মাঠিতে প্রথম টি-২০ ম্যাচে হেরে এবার দ্বিতীয় ম্যাচে ঠিকই ঘুরে দাড়ালো কিউইরা। দুর্দান্ত ব্যাটিং-বোলিং নৈপুণ্যে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ২১ রানে জিতে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড।  রোববার ওয়েলিংটনের ওয়েস্টপ্যাক স্টেডিয়ামে ১৭৭ রান তাড়ায় ইংলিশদের ইনিংস শেষ হয় ১৫৫ রানে। পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৭ উইকেটে জিতেছিল ইংল্যান্ড।

টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে ভালোই শুরু করে ইংলিশরা। বিপজ্জনক কলিন মানরোকে (৭) দ্রুত ফেরান স্যাম কারান। এরপর ঝড় ওঠে মার্টিন গাপটিলের ব্যাটে। ৩ চার ও ২ ছক্কায় ২৮ বলে ৪১ রানের ইনিংস আসে গাপটিলের ব্যাট থেকে। তার আগে কিপার-ব্যাটসম্যান সাইফার্টকে (১৬) ফেরান অভিষিক্ত ডানহাতি পেসার সাকিব মাহমুদ। তবে ২২ বছর বয়সী এই মিডিয়াম পেসার বাকি সময়ে ছিলেন বেশ খরুচে। ১২ বলে ৩ ছক্কা ও ১ চারে ২৮ রান করা কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে ফেরান আগের ম্যাচে অভিষেক হওয়া পেসার লুইস গ্রেগোরি।

থিতু হওয়া রস টেইলরকে ২৮ রানে ফেরান ক্রিস জর্ডান। শেষ দিকে এই পেসার নেন আরও দুই উইকেট। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান জেমি নিশাম ইনিংসের শেষ বলে জর্ডানের শিকার হওয়ার আগে ৪ ছক্কা ও ২ চারে খেলেন ২২ বলে ৪২ রানের ইনিংস। এটিই তার ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। ২৩ রানে ৩ উইকেট নেন জর্ডান, ২২ রানে ২ উইকেট নেন কারান।


লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই চাপে পড়ে ইংল্যান্ড। প্রথম বলেই জনি বেয়ারস্টোকে সাজঘরে ফেরান টিম সাউদি। পরের ওভারে জেমস ভিন্সকে আউট করেন ইশ সোদি। তিনটি করে ছক্কা-চারে ১৭ বলে ৩২ রান করে তিনিও ইশ সোদির শিকার হলে চাপ বাড়ে ইংলিশদের। স্যাম বিলিংস ও কারানও ফেরেন দ্রুতই। এরপর ইংলিশদের ভরসা হয়ে দাড়ান দাভিদ মালান। কিন্তু শেষমেশ ২৯ বলে ৩৯ রান করে ফিরে যান তিনিও। মাত্র ৯৩ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলে ইংল্যান্ড। এরপর তিনটি করে ছয় ও চারে জর্ডানের ১৯ বলে ৩৬ রানের ইনিংস কেবল পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে। ২৫ রানে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনার। পাঁচ ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ হবে মঙ্গলবার নেলসনে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

নিউজিল্যান্ডঃ ২০ ওভারে ১৭৬/৮ (গাপটিল ৪১, মানরো ৭, সাইফার্ট ১৬, ডি গ্র্যান্ডহোম ২৮, টেইলর ২৮, মিচেল ৫, নিশাম ৪২, স্যান্টনার ০, সাউদি ৪*; স্যাম কারান ৪-০-২২-২, মাহমুদ ৪-০-৪৬-১, জর্ডান ৪-০-২৩-৩, ব্রাউন ২-০-৩২-০, রশিদ ৪-০-৪০-১, গ্রেগোরি ২-০-১০-১)

ইংল্যান্ডঃ ১৯.৫ ওভারে ১৫৫ (বেয়ারস্টো ০, মালান ৩৯, ভিন্স ১, মর্গ্যান ৩২, বিলিংস ৮, স্যাম কারান ৯, গ্রেগরি ১৫, জর্ডান ৩৬, রশিদ ৪, মাহমুদ ৪, ব্রাউন ৪*; সাউদি ৪-০-২৫-২, ফার্গুসন ৪-০-৩৪-২, স্যান্টনার ৪-০-২৫-৩, সোধি ৪-০-৩৭-২, মিচেল ১.৫-০-৯-১)

ফলাফলঃ নিউ জিল্যান্ড ২১ রানে জয়ী
ম্যান অব দা ম্যাচ: মিচেল স্যান্টনার
সিরিজ: ৫ ম্যাচ সিরিজে ১-১ সমতা

আরও পড়ুনঃ

বৃষ্টির কারণে বেঁচে গেল পাকিস্তান

ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণা

এবাদতের বোলিং তোপে ১৬২ রানে অলআউট বরিশাল
বৃষ্টির কারণে বেঁচে গেল পাকিস্তান

বৃষ্টির কারণে বেঁচে গেল পাকিস্তান


টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে ১ নাম্বারে থাকা দল শ্রীলঙ্কার কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে তাদের মাঠিতেই। এরপর সেই শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করেছে অস্ট্রেলিয়া দল। এবার তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়ায় পাকিস্তান দল। আজ প্রথম ম্যাচে সিডনিতে মুখোমুখি হয় দুই দল। তবে বৃষ্টির কারণে পরিত্যাক্ত হয় ম্যাচটি।

যথাসময়েই টস হয়েছিল। অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন। তবে মাঠের খেলা শুরুর আগে নামে বৃষ্টি। আবার থেমে যাওয়ায় শুরু হয় খেলা। কিন্তু থেমে থেমে বারবার সিডনিতে ঝরেছে বৃষ্টি। যার ফলে নিশ্চিত পরাজয়ের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছে সফরকারী পাকিস্তান। এ ম্যাচে প্রায় সাড়ে তিন বছর পর পাকিস্তান দলে সুযোগ পান দীর্ঘদেহী পেসার মোহাম্মদ ইরফান।

আগে ব্যাট করতে নেমে অসি বোলারদের বিপক্ষে অধিনায়ক বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান ব্যতীত আর কেউই তেমন প্রতিরোধ গড়তে পারেননি। বৃষ্টির কারণে ২০ ওভারের খেলা পরিণত হয় ১৫ ওভারে। ফাখর জামান (০), হারিস সোহেল (৪), ইমাদ ওয়াসিম (০), আসিফ আলিরা (১১) ব্যর্থ হন। কাপ্তান বাবর আজম ৩৮ বলে অপরাজিত ৫৯ এবং মোহাম্মদ রিজওয়ান ৩৩ বলে ৩১ রান করলে ১৫ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১০৭ রান করতে সক্ষম হয় পাকিস্তান। মিচেল স্টার্ক ও কেন রিচার্ডসন নেন ২টি করে উইকেট।


ডিএলএস মেথডে অস্ট্রেলিয়ার সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৫ ওভারে ১১৯ রান। এ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৩.১ ওভারেই ৪১ রান করে ফেলে স্বাগতিকরা। অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ মাত্র ১৬ বলে করেন ৩৭ রান। ২ ওভার বল করে ৩১ রান দিয়ে ফেলেন বাঁহাতি পেসার মোহাম্মদ ইরফান। কিন্তু তখনই নামে বৃষ্টি। শেষ পর্যন্ত আর থামেনি বৃষ্টি। এজন্য কোনো ফল আসেনি ম্যাচে।

টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ফলাফল আসতে কমপক্ষে ৫ ওভার খেলা হতে হয়। বৃষ্টি আইনে বলছিল ৫ ওভারে বিনা উইকেটে ৩৩ রান করলেই জিতে যেত অস্ট্রেলিয়া। অথচ অজিরা করে ফেলে ৪১ রান। কিন্তু অজিরা সবশেষে ৩০ বল খেলতে না পারায় বেঁচে যায় পাকিস্তান। মাত্র ১১ বলের আক্ষেপ থেকেই গেল অজিদের!

আরও পড়ুনঃ

৭ উইকেট শিকার করলেন শাহীন আলম

রাজ্জাকময় দিনে বিপাকে খুলনা

বাংলাদেশ-ভারতের খেলা যেভাবে দেখবেন (অনলাইন ও টিভি)
ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণা

ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণা

ওমানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয়পর্বের ম্যাচের জন্য ২৩ সদস্যের দল বাছাই করেছেন বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে। সবশেষ ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের দল থেকে পরিবর্তন আছে একটি। জুয়েল রানা বাদ পড়েছেন দল থেকে, তার জায়গায় নেওয়া হয়েছে রাকিব হোসেনকে। 

গ্রুপ 'ই'-তে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে ১৪ নভেম্বরের ওমানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। ওমানের আল সিব-স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হবে ম্যাচটি। তিন ম্যাচে দুই জয় ও এক হার নিয়ে গ্রুপে কাতারের পর দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ওমান। ওমানের বিপক্ষে ম্যাচ খেলতে আগামীকাল ৩ নভেম্বর রাতে দেশত্যাগ করবে বাংলাদেশ।

তিন ম্যাচ থেকে ১ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে বাংলাদেশের অবস্থান সবার শেষে। প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের মাঠে ১-০ ব্যবধানে হারের পর ঘরের মাঠে কাতারের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরেছিল ২-০ ব্যবধানে। ওমানের বিপক্ষে এটি হবে বাংলাদেশের তৃতীয় অ্যাওয়ে ম্যাচ। এর পর গ্রুপে আর একটি অ্যাওয়ে ম্যাচ বাকি থাকবে বাংলাদেশের, কাতারের বিপক্ষে।


বাংলাদেশ স্কোয়াড

গোলরক্ষকঃ আশরাফুল ইসলাম রানা (শেখ রাসেল), শহীদুল আলম সোহেল (আবাহনী), আনিসুর রহমান (বসুন্ধরা কিংস)

ডিফেন্ডারঃ টুটুল হোসেন বাদশা (আবাহনী), বিশ্বনাথ ঘোষ (শেখ রাসেল), ইয়াসিন খান (শেখ জামাল), রহমত মিয়া (সাইফ স্পোর্টিং), রিয়াদুল হাসান (সাইফ স্পোর্টিং), ইয়াসিন আরাফাত (সাইফ স্পোর্টিং), রায়হান হাসান (আবাহনী)


মিডফিল্ডারঃ সোহেল রানা (আবাহনী), জামাল ভূঁইয়া (সাইফ স্পোর্টিং), রবিউল হাসান (আরামবাগ), মামুনুল ইসলাম (আবাহনী), মোহাম্মদ ইব্রাহিম (বসুন্ধরা কিংস), বিপলু আহমেদ (শেখ রাসেল), সাদ উদ্দিন (আবাহনী)

ফরোয়ার্ডঃ নাবিব নেওয়াজ জীবন (আবাহনী), মাহবুবুর রহমান সুফিল (বসুন্ধরা কিংস), মতিন মিয়া (বসুন্ধরা কিংস), আরিফুর রহমান (আরামবাগ), তৌহিদুল আলম সবুজ (বসুন্ধরা কিংস), রকিব হোসেন (রহমতগঞ্জ)

শনিবার, ২ নভেম্বর, ২০১৯

৭ উইকেট শিকার করলেন শাহীন আলম

৭ উইকেট শিকার করলেন শাহীন আলম

অনুর্দ্ধ-১৯ দলের ক্রিকেটার শাহীন আলম

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বরিশালে চলমান টেস্টে ৭ উইকেট নিলেন ১৯ না পেরোনো শাহীন আলম। তাঁর বোলিং নৈপুণ্যে খুলনা শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব ১৯ দল গুটিয়ে গেছে ১৮৪ রানে।

পরে ব্যাট হাতে নেমে চার দিনের দ্বিতীয় যুব টেস্টের প্রথম দিন শেষে বাংলাদেশের অনুর্ধ্ব ১৯ দল ২ উইকেটের বিনিময়ে সংগ্রহ করেছে ৭১ রান। অর্থাৎ ১১৩ রানে এখনো পিছিয়ে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা।


 লঙ্কানদের হয়ে ওপেনার ক্রিমাসিংহ ১০৫ বলে ১১ চারে সংগ্রহ করেন ৭৩ রান।
প্রতিপক্ষের মাঠে আবারও ইউনাইটেডের হার

প্রতিপক্ষের মাঠে আবারও ইউনাইটেডের হার

আবারও প্রতিপক্ষের মাঠে হেরেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এবার বোর্নমাউথের মাঠে হেরেছে উলে গুনার সুলশারের দল। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে শনিবার ম্যাচটি ১-০ গোলে জেতে বোর্নমাউথ। চলতি লিগে এ নিয়ে চতুর্থ হারের দেখা পেল ইউনাইটেড। এগারো রাউন্ড শেষে তাদের জয় মাত্র তিনটি। গত রাউন্ডে নরিচ সিটিকে হারিয়ে চলতি মৌসুমে অ্যাওয়ে ম্যাচে প্রথম জয়ের দেখা পেয়েছিল ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের দলটি।
বৃষ্টিতে ভারি হয়ে যাওয়া মাঠে শরীরের ভারসাম্য রাখতে না পারায় ভুগেছেন দুই দলের ফুটবলাররাই। প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে জসুয়া কিংয়ের দুর্দান্ত গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। অ্যাডাম স্মিথের ক্রসে বল বুক দিয়ে নামিয়ে প্রথম ছোঁয়ায় মার্কার অ্যারন ওয়ান-বিসাকাকে ছিটকে দিয়ে দ্বিতীয় ছোঁয়ায় দারুণ ভলিতে জাল খুঁজে নেন নরওয়ের ফরোয়ার্ড।


৬২তম মিনিটে দাভিদ দে হেয়ার দৃঢ়তায় ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারেনি বোর্নমাউথ। ১৩ মিনিট পর কর্নারের বিনিময়ে আবারও দলকে রক্ষা করেন স্প্যানিশ গোলরক্ষক। শেষ দিকে প্রতিপক্ষের রক্ষণে দারুণ চাপ তৈরি করে মরিয়া ইউনাইটেড। ৮২তম মিনিটে বদলি ফরোয়ার্ড ম্যাসন গ্রিনউডের ভলি কাছের পোস্টে লেগে ফিরলে সমতায় ফেরার সুযোগ হাতছাড়া হয় তাদের। ১১ ম্যাচে ইউনাইটেডের সংগ্রহ ১৩ পয়েন্ট।

আরও পড়ুনঃ

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে রাজ্জাকের '৬০০'

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আর্জেন্টিনা দলে ফিরলেন মেসি

এবাদতের বোলিং তোপে ১৬২ রানে অলআউট বরিশাল